আই হেইট পলিটিকস

মুখবন্ধ

‘এই হেইট পলিটিকস’ গ্রন্থটির নামকরণ দেখে মনে হতে পারে লেখক নিজেই রাজনীতিকে ঘৃণা করেন এবং নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করছেন রাজনীতি থেকে দূরে থাকতে, ঘৃণা করতে। নাম দেখে পাঠক যদি এ ধারণাটি পোষণ করেন তাহলে দোষ দেওয়ার কোন কারণ নেই। যদি লেখককে না চিনতাম, শুধু একজন সাধারণ পাঠক হতাম তাহলে আমারও সে রকম ধারণা হত নিঃসন্দেহে। লেখক নূরুন্নবী আলী একজন রাজনীতি সচেতন মানুষ , অন্তরে লালন করেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুজিবাদর্শ। স্কুলজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। প্রবাসী জীবনেও রাজনীতি থেকে দূরে নেই বরং রাজনীতি বিমুখ প্রজন্ম যারা তৈরি করতে চায় তাদের বিপরীতেই তাঁর শক্ত অবস্থান।
আমাদেরকে প্রায়ই শুনতে হয়, আমি বা আমরা রাজনীতি পছন্দ করি না। কেউ কেউ আবার আরও এককাঠি ওপরে উঠে রাজনীতিকে ঘৃণা করেন বলে আত্ম-সুখ অনুভব করেন। সেক্ষেত্রে যুক্তি বা উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেন রাজনীতি ও রাজনীতিবিদদের নানা স্খলন ও ত্রুটি। সাদাচোখে তাদের এ যুক্তি বা উদাহরণ অস্বীকার করার সুযোগ নেই। কিন্তু তাই বলে কি রাজনীতি বিবর্জিত পৃথিবী কামনা করা যায়, না ছিল কখনো? অন্যদিকে সমাজের অন্যান্য অংশ যারা, তারা কি স্খলন বা ত্রুটির উর্ধ্বে? মোটেই নয়। এই শ্রেণীভুক্ত যারা তারাও নানা দোষে দুষ্ট। কিন্তু যেহেতু রাজনীতিবিদদের মত জনগণের নিকট দায়বদ্ধতা কিংবা জবাবদিহিতার কোন অবকাশ নেই তাই অবলীলায় অপকর্ম করে যান আর বলির পাঁঠা সাজাতে চান রাজনীতিবিদদের। এই শ্রেণীভুক্তরা নিরপেক্ষতার নামে ভ-ামিও করে থাকেন, রাজনীতি বিমুখ প্রজন্ম তৈরি করতে চান। যা প্রকারান্তরে মূলতঃ যুগে যুগে কখনো সামরিক, কখনো বা বেসামরিক স্বৈরশাসনের পক্ষেই গিয়েছে, প্রতিক্রিয়াশীতার সহায়ক হিসেবেই শক্তি যুগিয়েছে।
এই যে রাজনীতি বিমুখ প্রজন্ম সৃষ্টির কৌশলী প্রক্রিয়া তার বিপরীতে নূরুন্নবী আলী রাজনীতি বিজ্ঞানের জনক গ্রীক দার্শনিক অ্যারিস্টটল থেকে শেখ হাসিনা পর্যন্ত বিশ্বের স্মরণীয় ও বরণীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, আদি থেকে অদ্যাবধি রাজনৈতিক বিবর্তন ও তার প্রভাব , বিভিন্ন দেশের মুক্তি সংগ্রামের ইতিহাস এবং বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের একটা পর্যায়ে রাজনীতিবিদে রূপান্তর উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেছেন, প্রজন্মকে বিভ্রান্তি পরিহার করে, রাজনীতিকে ঘৃণা নয় ভালবেসে একটা পরিশুদ্ধ আবহ সৃষ্টিতে ভূমিকা রাখতে। যতই বলি না কেন, রাজনীতি পছন্দ করি না অথবা ঘৃণা করি, এ কথাতো স্বীকার করতেই হবে রাজনৈতিক দল ও রাজনীতিবিদরা দেশ ও সমাজ নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা করেন। সুতরাং ‘আই হেইট পলিটিকস’ বলে যদি আমরা দূরে থাকি তাহলে যারা রাজনীতিকে দুষিত করছে, অপকর্মের মাধ্যমে রাজনীতির পুরো দর্শনকে জনমনে ভিন্নভাবে উপস্থাপনার সুযোগ নেবে এবং নিচ্ছে।
লেখক নূরুন্নবী আলী প্রজন্মকে রাজনীতিমুখি করা এবং ঘৃণা নয়, ভালবাসার জন্য আমাদের মুক্তিযুদ্ধ এবং দেশ ও বিশ্ব বরেণ্য রাজনীতিবিদদের কথা তুলে ধরেছেন এই বইটিতে। যেমন মহাত্মা গান্ধী, নেতাজি সুভাষ বসু, শেরে বাংলা, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রমুখ। তুলে ধরেছেন বিশ্ববরেণ্য বিভিন্ন অঙ্গনের তারকাদের কথা যারা নিজ নিজ ক্ষেত্রের বাইরেও রাজনৈতিক অঙ্গনে রেখেছেন ইতিবাচক ও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। লেখকের সমূদয় প্রচেষ্টার মূল উদ্দেশ্যই হল প্রজন্ম থেকে প্রজন্মকে রাজনীতিমুখি করে গড়ে তোলা মাটি ও মানুষের স্বার্থে। এ প্রচেষ্টা যদি কিছুটা হলেও সফল হয়, তাহলে পরিশুদ্ধ রাজনীতির জয় হবে, লেখকের কষ্ট স্বার্থক হবে। বইটি পাঠকপ্রিয় হয়ে উঠুক তাই কামনা করি।

সুজাত মনসুর
লেখক-সাংবাদিক

 

৳ 300

About The Author

নূরুন্নবী আলী

নূরুন্নবী আলী

চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বক্তিয়ার পাড়ায় জন্মগ্রহন করেন। স্কুল জীবন হতে লেখালেখি তে হাতেখড়ি। আনোয়ারা পশ্চিম পটিয়া হতে প্রকাশিত প্রথম পত্রিকা সাপ্তাহিক অবিচল এর সম্পাদক, শিশুদের পাঠশালা, আনোয়ারা শাখার পরিচালক, আনোয়ারা সাহত্য পরিষদের সাঢারন সম্পাদক ও বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের সমন্বয় কারীর দায়িত্বে পালন কালে "মালঞ্চ" সহ নানা প্রকাশনার সাথে সম্পৃক্ত আছেন। লন্ডন ভিত্তিক চতারিটি সংস্থা " দেশী হোপ" এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং বাংলাদেশ কো-অর্ডিনেটর দায়িত্ব পালন করেছেন।

 

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “আই হেইট পলিটিকস”

Your email address will not be published. Required fields are marked *