জীবনের পথে প্রান্তরে

আমার এ জীবনে এ যাবত কত যে ঘটনা ঘটেছে, তাঁর কিছুটাও যদি সামনের দিনগুলোয় কাগজের বুকে উন্মোচিত করতে পারি, তাহলে তা একটি বিরাট সমাজ-আলেখ্য হবে। ১৯৪০ থে ২০১০ সাল- গাঙ্গেয় এ – বদ্বীপের ইতিহাসের বিশাল ভাঙ্গা-গড়ার কাল, বহু মিথ্যা রাস্ট্র-তত্ত্বের জন্ম-মৃত্যুর কাল, সেই সঙ্গে বহু সপ্নের অকাল মৃত্যুর কালও। একালে যেমন ঘটেছে বিশাল সব পতন , তেমনি ঘটেছে বিরাট সব অভ্যুদয়। এইকাল একই সঙ্গে বিনাশ ও অভিনাশি। এইসব সংখ্যাতীত জীবনের বিনিময়ে আমরা একটি মহৎ কালের সূচনার জে ইঙ্গিত পেয়েছি- বাঙ্গালি সত্যিই তাকা মূল্যায়ন দিতে পারবে কিনা তা নির্ভর করছে মহৎ জীবন বোধে, কর্মবোধে উদ্বুদ্ব হয়ে প্রতিটি বাঙ্গালির জীবনে সার্বিক অর্থে মুক্তির সপ্নে তা মুর্ত ক্রতে পারবে কিনা, তারই উপর এই গ্রন্থে আমি এই কালে আমার জীবনের সামান্য কয়েকটি ঘটনা বা কণিকার কথাই উল্লেখ করেছি, আর কিছু নয়।

৳ 80

About The Author

ডাঃ অনুপম সেন

ডাঃ অনুপম সেন

জন্ম ১৯৪০ সালের ৫ আগস্ট, চট্টগ্রাম শহরে।
মাতা স্নেহলতা সেন ও পিতা বীরেন্দ্রলাল সেন
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৬২ সালে বিএ(অনার্স) এবং ১৯৬৩ সালে এমে ডিগ্রী অর্জন করেন সমাজতত্ত্বে । কানাডার ম্যাকমাস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৪ সালে এমএ অ ১৯৭৯ সালে পিএইসডি ডিগ্রি লাভ করেন।
বাংলাদেশ প্রোকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (পূর্ব নাম E.P.U.E.T), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে দীর্ঘ চার দশক শিক্ষকতা করেছেন। বর্তমানে তিনি প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য।
সমাজতত্ত্ব এবং সাহিত্য-শিল্পকলার বিভিন্ন বিষয়ে বহু গ্রন্থের তিনি লেখক। বিশ্ববিখ্যাত প্রকাশক Routledge & Kegan Paul তাঁর The State, Industrialization and class Foundations in India গ্রন্থটি প্রকাশ করেছে।
তাঁর বাংলাদেশঃ সমাজ ও রাস্ট্রঃ বাংলাদেশ ও বাঙ্গালীঃ রেনেসাঁস, স্বাদীনতা-চিন্তা ও অনুসন্ধান ; ব্যক্তি ও রাস্ট্র; সমাজ বিন্যাস ও সমাজ দর্শনের আলোকে; আদি-অন্ত বাঙালি; বাঙ্গালী সত্বার ভূত-ভবিষ্যৎ; বাংলাদেশঃ ভাবাদর্শগত ভিত্তি ও মুক্তির সপ্ন; কবি-সমলোচক শশাঙ্কমোহন সেন; বিলসিত শব্ধগুচ্ছ; সুন্দরের বিচার সভাতেঃ জীবনের পথে প্রান্তরে প্রভৃতি গ্রন্থ বিদগ্ব পাঠকসমাজে আদৃত হয়েছে।
অনুপম সেন ২০১৫ সালের একুশে পদক সহ অনেক পুরস্কার ও সন্মাননায় ভূষিত হয়েছেন।

বলাকা প্রকাশনঃ

‘জীবনের পথে প্রান্তরে’ কোন আত্মজীবনী নয়। চট্টগ্রামের পাঠকদের জন্য দৈনিক ‘প্রথম আলো’র বিশেষ প্রকাশনা ‘ আলোকিত চট্টগ্রাম’ – পত্রিকাটির জ্যৈষ্ঠ উপ-সম্পাদক শামসুল হক এ লেখাটি বছর তিনেক আগে চার পর্বে প্রকাশ করেছিলেন। মূলত তাঁর অনুরোধে সাড়া দিয়ে আমি আমার যাপিত জীবনের কিছু ঘটনা বা পর্ব প্রশ্নোত্তর আকারে ছাপাতে রাজি হয়েছিলাম। কেবল আমার নয়, যতটুকু মনে পড়ে, সে সময় তিনি বিশিষ্ট ভাষাবিজ্ঞানী ড. মনিরুজ্জামানসহ আরও ক’জনের জীবন কণিকা প্রকাশ করেছিলেন।

আমার এ জীবনে এ যাবত কত যে ঘটনা ঘটেছে, তাঁর কিছুটাও যদি সামনের দিনগুলোয় কাগজের বুকে উন্মোচিত করতে পারি, তাহলে তা একটি বিরাট সমাজ-আলেখ্য হবে। ১৯৪০ থে ২০১০ সাল- গাঙ্গেয় এ – বদ্বীপের ইতিহাসের বিশাল ভাঙ্গা-গড়ার কাল, বহু মিথ্যা রাস্ট্র-তত্ত্বের জন্ম-মৃত্যুর কাল, সেই সঙ্গে বহু সপ্নের অকাল মৃত্যুর কালও। একালে যেমন ঘটেছে বিশাল সব পতন , তেমনি ঘটেছে বিরাট সব অভ্যুদয়। এইকাল একই সঙ্গে বিনাশ ও অভিনাশি। এইসব সংখ্যাতীত জীবনের বিনিময়ে আমরা একটি মহৎ কালের সূচনার জে ইঙ্গিত পেয়েছি- বাঙ্গালি সত্যিই তাকা মূল্যায়ন দিতে পারবে কিনা তা নির্ভর করছে মহৎ জীবন বোধে, কর্মবোধে উদ্বুদ্ব হয়ে প্রতিটি বাঙ্গালির জীবনে সার্বিক অর্থে মুক্তির সপ্নে তা মুর্ত ক্রতে পারবে কিনা, তারই উপর এই গ্রন্থে আমি এই কালে আমার জীবনের সামান্য কয়েকটি ঘটনা বা কণিকার কথাই উল্লেখ করেছি, আর কিছু নয়।

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “জীবনের পথে প্রান্তরে”

Your email address will not be published. Required fields are marked *